eSIM কি? ই-সিমের সুবিধা ও অসুবিধা কি ?

বন্ধুরা দিন যত যাচ্ছে ততই টেকনোলজি আরো উন্নত হচ্ছে , ইতি মধ্যেই আমাদের দেশে ই-সিম ব্যাবস্থা চালু হয়ে গেছে। পাল্টে দেবে সিমের পুরনো প্রক্রিয়া। তবে এই ই-সিম কি? ই-সিমের ব্যাবহারের সুবিধা ও অসুবিধা গুলি কি চলুন আজকে এই পোষ্টে জেনে নেওয়া যাক । এখন আপনি ভাবছেন কেন এই ই-সিম ব্যাপারে আপনাকে জানা দরকার ? সম্প্রতি ভারতে ও বাংলাদেশে এই টেকনোলজির সিম ব্যাবহার শুরু হয়ে গেছে ,তাই আপনাকে জানা দরকার ই-সিম এর ব্যাপারে সম্পূর্ণ তথ্য জানা দরকার ,তাই আজকে আপনার জন্য এই পোষ্টটি বানানো ।

ই-সিম এর বিষয়ে জানার আগে আপনাকে নরমাল সিমের ব্যাপারে কিছু বিষয় জানা দরকার।

সিম এর সম্পূর্ণ রূপ হলো – “Subscriber Identify Module” , একটি সিম কার্ডের ভেতর আমরা কন্টাক নম্বর সেভ করতে পারি ও সেটা অন্য কোনো ফোনে সিম প্রবেশ করালে আগের কন্টাক নম্বর ফিরে পাই , এক কথায় বলা যায় সিম কার্ড হলো একটি মোবাইল অপারেটর নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত হবার মাধ্যম । সিম কার্ড পুরনো একটি প্রযুক্তি ,এটি অনেক আগে থেকেই চলে আসছে কিন্তু এখন সেটি পাল্টে দিতে চলেছে ই-সিম ।তো এবার ফিরবো মূল বিষয়ে ।

ই-সিম কি? (What is eSIM?)

ই-সিম হলো একটি সম্পূর্ণ নতুন সিম প্রযুক্তি , এটি পুরনো সিম থেকে অনেক আলাদা । ই-সিম ফোনের সাথে যুক্ত থাকে যার ফলে এটি অন্য ফোনে প্রবেশ করানো যায় না ও রিমুভ করা যায় না । ই-সিম এর ভেতর থাকা ডেটা পরিবর্তন করতে পারেন।
ই-সিম ব্যাবহার করার ফলে আপনি কোনো সিম পরিবর্তন না করেই আপনি সহজেই ইচ্ছা মত অপারেটর চেঞ্জ করতে পারবেন।

ই-সিম

ই-সিম এর সুবিধা (Benefits of e-SIM)

  • সিম পরিবর্তন:
    ই-সিম ব্যাবহার করে খুব সহজেই মোবাইল অপারেটর চেঞ্জ করতে পারবেন ও সিম চেঞ্জ করার পরে আপনাকে কোনো নতুন সিম প্রবেশ করতে হবে না , সিম খোলারও প্রয়োজন হবে না।
  • টেকসই:
    বৃষ্টি বা কোনো কারনে ফোনে জলে ভিজে গেলে ই-সিম নষ্ট হবে না।
  • অধিক সিম এক সাথে চালানো:
    ই-সিম ব্যাবহার করার মাধ্যমে আপনি একবারে বেশকিছু সিম চালাতে পারেন।
  • ইন্টারন্যাশনাল ব্যাবহার:
    ই-সিম ব্যাবহার করে আপনি দেশের বাইরেও এই সিম চালাতে পারেন ও সেখানকার নম্বরও ই-সিম এ ব্যাবহার করতে পারেন।
  • এক্সট্রা:
    ই-সিম সাধারণ সিম কার্ড এর থেকে ছোট তাই সেই জায়গায় মোবাইল কোম্পানি অন্য কোনো ফিচার যোগ করতে পারে ,তাছাড়া ফোন যত ছিদ্র কম থাকবে তত ফোনে কম ধুলো-বালি কম ঢুকবে ও ফোন পরিষ্কার থাকবে।

ই-সিম এর অসুবিধা ( Disadvantages of e-SIM):

যেকোনো জিনিস হোক না কেন যে জিনিস সুবিধা দেই সেটিতে কিছু না কিছু অসুবিধাও থেকে থাকে, সেগুলো হলো –

  • সব সিম না চলা :
    ই-সিমে এক সাথে অনেক সিম চললেও যখন কোনো সিম এ ফোন আসবে তখন আর সব সিম বন্ধ দেখাবে।
  • অন্য ডিভাইসে ব্যাবহার
    ই-সিম এক ফোন থেকে অন্য ফোনে প্রবেশ করানো যায় না। তাই আপনার ফোনে চার্জ না থাকলে বা খারাপ হলে তখন ই-সিম ব্যাবহার করতে পারবেন না।
  • নম্বর উদ্দার:
    এটি ই-সিম ব্যাবহারের সব থেকে খারাপ দিক , সাধারণত আমরা যখন ফোনের কিছু হয় তখন আমরা সিম এ সেভ করা নম্বর গুলো অন্য ফোনে নেওয়ার জন্য সিমটিকে অন্য ফোনে প্রবেশ করিয়ে নম্বর গুলো ফেরত পেয়ে থাকি তবে এটি আর সম্ভব হবে না।

ই সিম সাপোর্ট মোবাইল :

বর্তমানে যে সকল ফোনগুলোতে ই-সিম সাপোর্ট করে সেগুলি হলো –

মটোরেলা ই-সিম সমর্থিত ফোন (Motorola e-SIM Supported phones)

G53J 5G
G52J 5G Ⅱ
G52J 5G
Edge 40 Pro
Edge 40
Edge+
Razr+
Razr 40 Ultra
Razr 40
Razr 5G
Razr 2019

সাওমি ই-সিম সমর্থিত ফোন (Xiaomi e-SIM Supported phones)

 

Read more : Xiaomi একাউন্ট কি? Mi Account এর কি ব্যাবহার ?

13T Pro
13 Pro
13 Lite
13
12T Pro

স্যামসাং ই-সিম সমর্থিত ফোন (Samsung e-SIM Supported phones)

Samsung Galaxy Z Flip5 5G
Samsung Galaxy Z Flip4
Samsung Galaxy Z Flip3 5G
Samsung Galaxy Z Flip
Samsung Galaxy Z Fold5 5G
Samsung Galaxy Z Fold4
Samsung Galaxy Z Fold3 5G
Samsung Galaxy Z Fold2 5G
Samsung Galaxy Note 20 Ultra 5G
Samsung Galaxy Note 20
Samsung Galaxy S23 Ultra
Samsung Galaxy S23+
Samsung Galaxy S23
samsung Galaxy S22 Ultra
Samsung Galaxy S22+
Samsung Galaxy S22
Samsung Galaxy S21+ Ultra 5G
Samsung Galaxy S21+ 5G
Samsung Galaxy S21
Samsung Galaxy S20 Ultra 5G
Samsung Galaxy S20 Ultra
Samsung Galaxy S20+ 5g
Samsung Galaxy S20
Samsung Galaxy S20+

আই ফোন ই-সিম সমর্থিত ফোন (IPhone e-SIM Supported phones)

Watch SE
Watch series 6
Watch series 5
Watch series 4
Watch series 3
iPad
iPad Air
iPad Pro
iPhone 15 Pro Max
iPhone 15 Pro
iPhone 15 Plus
iPhone 15
iPhone 14 Pro Max
iPhone 14 Pro
iPhone 14 Plus
iPhone 14
iPhone SE (2022)
iPhone 13 Pro Max
iPhone 13 Pro
iPhone 13
iPhone 13 mini
iPhone 12 Pro Max
iPhone 12 Pro
iPhone 12
iPhone 12 Mini
iPhone SE (2020)
iPhone 11 Pro Max
iPhone 11 Pro
iPhone 11
iPhone XS Max
iPhone XS
iPhone XR

Oppo ই-সিম সমর্থিত ফোন (Oppo e-SIM Supported phones)

Reno 6 Pro 5G
A55s 5G
Find X5 Pro
Find X5
Reno 5 A
Find X3 Pro
Find N2 Flip

গুগল ই-সিম সমর্থিত ফোন (Google e-SIM Supported phones)

Pixel Fold
Pixel 8 Pro
Pixel 8
Pixel 7 Pro
Pixel 7
Pixel 6 Pro
Pixel 6a
Pixel 6
Pixel 5
Pixel 4a
Pixel 4
Pixel 3
Pixel 3a

FAQ:

প্রশ্ন: কোন কোন সিম অপারেটর e-SIM ফিচার পাওয়া যায়?
উত্তর: ভারত – এয়ারটেল,জিও,ভি
বাংলাদেশ – গ্রামীনফোন,বাংলালিংক

প্রশ্ন: ই সিম এর দাম কত?
উত্তর: ভারত – ১৮০ থেকে শুরু / বাংলাদেশ – ৩০০ টাকা থেকে শুরু

শেষ কথা :

তো আশাকরি আপনি e-SIM কি সেটার বিষয়ে সম্পূর্ণ তথ্য দিতে পারলাম , আর এই পোস্টে e-SIM এর সুবিধা ও অসুবিধা কি সেটাও লিখেছি তো আপনি কি এই ফিচারটি ব্যাবহার করতে চান ? সেটি কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাতে পারেন । এই পোস্টটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে তাদেরকে এই ফিচারের বিষয়ে জানাতে পারেন । পোস্টটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *